দেখুন মেসি কেন চাচ্ছেন নেইমারকে বার্সায় ফেরাতে!

নেইমার নিজেও বার্সায় ফিরতে চান। সম্প্রতি ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড স্বীকার করেছেন, তার জীবনের সবচেয়ে বড় ভুল বার্সেলোনায় মেসি, সুয়ারেজদের ছেড়ে চলে আসা। বিশেষ করে মেসিকে। নেইমার সম্প্রতি আবেগময় এক সাক্ষাৎকারে তো বলেই ফেলেন, বার্সায় ফিরে যাওয়াই তার একমাত্র লক্ষ্য।
বার্সায় মেসি-নেইমারের যুগলবন্দী ছিল চারটি মৌসুম। নেইমারের সঙ্গে মেসির বোঝাপড়াটাও দারুণ। কিন্তু লোভনীয় অফারে সেই সম্পর্ক ছিন্ন করে পিএসজিতে চলে যান নেইমার। এখন আসতে চাইলেও বার্সা আর্থিক দিক থেকে পোষাতে পারছে না। অ্যান্তোনিও গ্রিজম্যানকে কিনতে গিয়ে প্রচুর টাকা খরচ হয়ে গেছে তাদের।
স্প্যানিশ সাংবাদিক গ্রাহাম হান্টারের দাবি, মেসিও নাকি তার পুরনো এবং অন্যতম প্রিয় বন্ধু নেইমারকে ফেরাতে উঠে পড়ে লেগেছেন। যে কারণে ক্লাবের সঙ্গে নতুন দীর্ঘমেয়াদি চুক্তি না করে আসলে বার্সাকে চাপেই রাখছেন।
লিওনেল মেসি আর বার্সেলোনা যেন সমর্থক শব্দ। কথায় আছে, মেসি হাঁচি দিলেও নাকি বার্সার ঠান্ডা লেগে যায়। বার্সাতে আর্জেন্টাইন খুদেরাজের প্রভাব কতটা, আন্দাজ করাই যায়। এই মেসিই এবার চাইছেন ব্রাজিলিয়ান সুপারস্টার নেইমারকে। পিএসজি তারকাকে বার্সায় ফেরানো না হলে দলের সঙ্গে দীর্ঘমেয়াদি চুক্তিতে তিনি সই করবেন না বলেই খবর বেরিয়েছে।
ওই সাংবাদিকের ভাষ্যমতে, বার্সার এখনকার প্রেসিডেন্ট হয়তো ২০২১ সালের পরে আর থাকবেন না। তাই তিনি যে কোনোভাবেই হোক মেসির সঙ্গে নতুন দীর্ঘমেয়াদি চুক্তিটা সেরে ফেলতে চান। এদিকে বার্সা সেভাবে রাজি না হলেও নেইমারকে শিবিরে ভেড়াতে অনড় মেসি। এ নিয়েই চলছে গড়িমসি।
নেইমারকে তারা নিতে চায় বদল হিসেবে। তার বিনিময়ে ফিলিপে কৌতিনহো, ইভান রাকিতিচ, উসমান দেম্বেলে, নেলসন সেমেডোর মধ্যে দু’জনকে ছেড়ে দিতে রাজি আছে বার্সা। তবে তাদের সেই বদলাবদলিতে আগ্রহ নেই পিএসজির। দেখা যাক, শেষ পর্যন্ত কোথাকার জল কোথায় গিয়ে গড়ায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *