ছেলের জন্য নিজের আইসিইউ শয্যা ছেড়ে দিয়ে মৃত্যুর কোলে মা

করোনা আক্রান্ত হয়ে সংকটাপন্ন অবস্থায় আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন মা। একই হাসপাতালের আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন ছিলেন তার ছেলে। একপর্যায়ে ছেলের অবস্থারও অবনতি ঘটে, প্রয়োজন হয় আইসিইউর।

ডেঙ্গু জ্বর ও করোনার লক্ষণ এক হলেও পার্থক্য বুঝবেন কিভাবে?

কিন্তু ছেলের জন্য সারা চট্টগ্রামের কোথাও মেলেনি আইসিইউ শয্যা। মুমূর্ষু অবস্থায় আইসিইউতে শুয়ে থাকা মায়ের কানে খবরটা যেতেই ছটফট করতে থাকেন মা। নিজের শয্যায় ছেলেকে চিকিৎসা দেওয়ার জন্য চিকিৎসকদের ইশারা করেন মা।

চিকিৎসকরা বোঝানোর চেষ্টা করেও মাকে ওই অবস্থান থেকে সরাতে পারেননি। বাধ্য হয়ে মাকে নামিয়ে আইসিইউ বেডে তোলা হয় ছেলেকে। এর এক ঘণ্টার মাথায় করোনার কাছে হার মানেন মা। মায়ের জীবন ত্যাগের মধ্য দিয়ে আইসিইউ শয্যা মিললেও এখন ছেলের প্রাণও যায় যায়। তবে মুমুর্ষু অবস্থায় এখনো বেঁচে আছেন ছেলে।

করোনা মহামারীতে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে যে খাবারগুলো প্রয়োজন

হাসপাতালটির আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. আহমেদ তানজিমুল ইসলাম বলেন, ‘মা ছেলের জন্য আইসিইউ ছেড়ে দেন। কিছুক্ষণ বাদে মা মারা যান। মায়ের মৃত্যুর পর ছেলের অবস্থার আরও অবনতি হয়। তিনি এখনও আইসিইউ ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন। তবে খুবই ক্রিটিক্যাল অবস্থায় আছেন।’

কোভিড-১৯: জেনে নিন শরীরে অক্সিজেন কমে গেলে জানবেন কিভাবে, কি করবেন

কানন প্রভা পাল করোনায় আক্রান্ত হয়ে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে এসেছিলেন ১৫ জুলাই। শুরুতে তিনি আইসোলেশন ওয়ার্ডে ছিলেন। পরে ২২ জুলাই হাসপাতালটির আইসিইউ ওয়ার্ডে নেওয়া হয় তাকে। এর একদিন আগে ২১ জুলাই করোনা আক্রান্ত হয়ে জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশনে আসেন তার ছেলে শিমুল পাল।

করোনার অ্যান্টিজেন টেস্টের অনুমতি পেল ৭৭ প্রতিষ্ঠান, ফি ৭০০ টাকা

হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক মো. আবদুর রব বলেন, ‘আমাদের ১৬টি আইসিইউতে সব সময় রোগী থাকছে। শিমুলের আইসিইউ দরকার হলেও খালি না থাকায় দেওয়া সম্ভব হচ্ছিল না। আমরা নিরুপায়। পরিবার বন্ড দিয়ে কানন প্রভাকে আইসিইউ থেকে নামিয়ে নেয়।’