নেইমারের জাদুতে ইকুয়েডের বিরুদ্ধে সহজ জয় ব্রাজিলের

লাতিন আমেরিকান অঞ্চলের বিশ্বকাপ বাছাইয়ে নিজেদের জয়যাত্রা অব্যাহত রাখল ব্রাজিল। সবশেষ ইকুয়েডরের বিপক্ষে ২-০ গোলে জিতল তিতের দল। তারকা ফরোয়ার্ড নেইমারের পেনাল্টিতে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে ইকুয়েডরকে ২-০ গোলে পরাজিত করেছে ব্রাজিল। গোল করেছেন নেইমার আর রিচার্লিসন। পোর্তো আলেগ্রের এই জয় দিয়ে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে খেলা পাঁচ ম্যাচের পাঁচটিতেই জয় তুলে নিল তারা।
প্রথম পাঁচটি ম্যাচের মধ্যে পাঁচটি জিতেই ১৫ পয়েন্ট নিয়ে এক নম্বরে রয়েছে ব্রাজিল৷ সমসংখ্যক ম্যাচে ১১ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে আর্জেন্তিনা(Argentina)৷ ৯ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে রয়েছে ইকুয়েডর৷

৪-৩-৩ ছকে মাঠে নেমেছিল ব্রাজিল। লিভারপুলের গোলকিপার আলিসনের সামনে সেন্ট্রাল ডিফেন্সে জুটি বেঁধেছিলেন পিএসজির মার্কিনিওস ও রিয়াল মাদ্রিদের এদের মিলিতাও। দুপাশে দুই ফুলব্যাক হিসেবে খেলেছেন জুভেন্টাসের দানিলো (রাইটব্যাক) ও অ্যালেক্স সান্দ্রো (লেফটব্যাক)।
ব্রাজিলের স্তাদে বেইরা রিও’তে গোল পেতে ঘাম ছুটে যায় স্বাগতিকদের। প্রথমার্ধ থাকে গোলশূন্য। ঘরের মাঠে গোল পেতে এতটা বেগ পেতে হবে ব্রাজিলকে তা কেউ ভাবেনি। ৬৫ মিনিটের মাথায় এসে প্রথম গোলের দেখা পায় ব্রাজিল। দ্বিতীয় গোলটি আসে অতিরিক্ত সময়ে পেনাল্টি থেকে। গোলটি করেন নেইমার।

বিশ্বকাপ বাছাইয়ে এবার সবাইকে ছাড়িয়ে বীরদর্পে এগিয়ে যাচ্ছে ব্রাজিল। বাছাইয়ের পাঁচ ম্যাচের পাঁচটিতে জয়ে উড়ছে কোপা আমেরিকার বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। ১৫ পয়েন্ট নিয়ে সবার ওপরে তিতে বাহিনী।

দুই দলই ঢিমে তালে শুরু করে। কিন্তু ধীরে ধীরে উইং ধরে ইকুয়েডরের (Ecuador) রক্ষণে চাপ বাড়ায় ব্রাজিল। ম্যাচে প্রথম ভালো সুযোগ পায় তারা। ২০ মিনিটে ৩৫ গজ দূর থেকে নেইমারের ফ্রি-কিকে ঠিক মতো পা-ছোঁয়াতে পারেননি রিচার্লিসন। ফলে অল্পের জন্য সুযোগ হাতছাড়া হয় ব্রাজিলের৷ নেইমারদের (Neymar) আক্রমণ সামলে ধীরে ধীরে আক্রমণ বাড়ায় ইকুয়েডরও। কিন্তু ব্রাজিলের রক্ষণের তেমন কোনও পরীক্ষা নিতে পারেনি তারা। ৪১ মিনিটে ব্রাজিলের জালে বল পাঠান বারবোসা। কিন্তু অফ-সাইডে থাকায় গোল হয়নি।

ব্রাজিলের এই নতুন কৌশলের জবাব জানা ছিল না ইকুয়েডরের। অবশেষে ৬৫ মিনিটে গোলের দেখা পায় ব্রাজিল। আক্রমণাত্মক মিডফিল্ড পজিশন থেকে নেইমারের কাছ থেকে বল নিয়ে ডি-বক্সের বাঁ প্রান্ত থেকে শট নেন রিচার্লিসন। আটকাতে পারেননি ইকুয়েডরের গোলকিপার আলেক্সান্দার দমিঙ্গেস।

ম্যাচের একদম শেষ মুহূর্তে পেনাল্টি পায় ব্রাজিল। নেইমারের শট দমিঙ্গেস আটকে দিলেও ভিএআরের মাধ্যমে দেখা যায়, পেনাল্টি নেওয়ার সময় নিজের লাইন ছেড়ে অনেকটাই এগিয়ে এসেছিলেন ইকুয়েডরের এই গোলকিপার। ফলে আবারও ব্রাজিলকে পেনাল্টি নেওয়ার সুযোগ করে দেন রেফারি।

বুধবার প্যারাগুয়ের (Paraguay) মুখোমুখি হবে ব্রাজিল (Brazil)। প্রত্যাশিত ভাবেই কালকের ম্যাচে প্রথম ভাগে ৭৬ শতাংশ পজিশন ছিল ব্রাজিলের দখলেই।