জোড়া গোলেও পিএসজিকে জেতাতে পারলেন না নেইমার

মোনাকো এক সময় ফ্রেঞ্চ লিগে প্রতাপশালী দলের একটি ছিল । টানা গত দুই মৌসুম প্যারিস সেন্ট জার্মেইয়ের লিগ ওয়ান শিরোপা জেতার আগেও নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রেখেছিল মোনাকো । মোনাকো শেষবার ২০১৬-১৭ মৌসুমে শিরোপা জিতেছিল । মোনাকোর সেই দলে ছিলেন কিলিয়ান এমবাপ্পে, ফাবিনহো, তিমুইয়ে বাকায়োকো, বেঞ্জামিন মেন্ডি, জিব্রিল সিদিবে, রাদামেল ফালকাও, বার্নার্ডো সিলভাদের মতো তারকারা। কিন্তু বর্তমারে সে মোনাকো এখন ভাঙা হাটবাজার। তবে গত রাতে ‘পুরোনো শত্রু’ পিএসজিকে পেয়ে যেন সেই আগের মতো জ্বলে উঠল মোনাকো। কিন্তু নেইমার, মাউরো ইকার্দি, এডিনসন কাভানি, অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়াদের মতো তারকা থাকা সত্ত্বেও ফরাসি চ্যাম্পিয়নদের ৩-৩ গোলে আটকে দিয়েছে তারা।পুরো ম্যাচে আলো ছড়িয়েছেন নেইমার। করেছেন জোড়া গোল। কিন্তু ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডের সব চেষ্টাই যেন বৃথা হয়ে যায় ড্রয়ের পর।

প্রথমার্ধ থেকেই দুর্দান্ত আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলা শুরু করে দুই দল। প্রতিপক্ষের দুর্বল রক্ষণ আর নেইমারের নৈপুণ্যে ম্যাচের তৃতীয় মিনিটেই গোল পেয়ে যায় পিএসজি। মার্কো ভেরাত্তির উঁচু করে বাড়ানো বল ডি-বক্সে ফাঁকায় পেয়ে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ঠাণ্ডা মাথায় জোরালো শটে কাছের পোস্ট দিয়ে ঠিকানায় পাঠান ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড। অবশ্য ব্যবধানটা তারা বেশিক্ষণ ধরে রাখতে পারেনি। সপ্তম মিনিটে গেলসন মার্তিন্সের গোলে সমতায় ফিরে মোনাকো। এরপর ১৩ মিনিটে উল্টো এগিয়েও যায় তারা। পার্ক দ্য প্রিন্সেসকে নীরব করে দেন বেন ইয়েদ্দের। এমবাপ্পে, ইকার্দি, ডি মারিয়ারা কিছু করতে পারছেন না, এমন অবস্থায় দলকে বাঁচানোর দায়িত্ব আবারও নিজের কাঁধে তুলে নেন নেইমার।
৪২ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে আরেকবার দলকে এগিয়ে দেন নেইমার। তবে তাদের জয়ের উচ্ছ্বাস মাটি হয়ে যায় ৭০ মিনিটে। ইসলাম স্লিমানির গোলে সমতায় ফিরে পিএসজিকে এক পয়েন্ট উপহার দেয় মোনাকো। ড্র সত্ত্বেও লিগ ওয়ানে শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে পিএসজি।

১৯ ম্যাচে ১৫ জয় ও এক ড্রয়ে ৪৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে পিএসজি। দুইয়ে থাকা মার্সেইয়ের অর্জন ২০ ম্যাচে ৪১ পয়েন্ট। ১৯ ম্যাচে ২৯ পয়েন্ট নিয়ে অষ্টম স্থানে আছে মোনাকো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *