চুল পেকে যাচ্ছে? পাকা চুল কালো করার কয়েকটি ঘরোয়া টিপস

কথায় আছে চুল পাকতে বয়স লাগে না। বাচ্চা বয়সেও চুল পাকতে পারে আবার দেখা যায় বয়স হয়ে গেছে ৭০ তখনও চুল কুচকুচে কালো। তবে কম বয়সে পাকা চুল বাড়িয়ে দেয় আপনার বয়স-অর্থাৎ দেখতে অনেকটা বয়স্ক মনে হয়। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে চুল পাকা অস্বাভাবিক নয়-বরং এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু অস্বাভাবিক হয় তখনই যখন অল্প বয়সেই চুল পেকে যায়।তখন বুঝতে হবে কোন না কোন সমস্যায় চুল পাকছে।

ওজন বৃদ্ধি, ক্যানসার-ডায়াবেটিক ছাড়াও চিনিতে মারাত্মক রোগ!

সাধারণত চুল কেন পাকে?

সঠিক পুষ্টির অভাব, হরমোন সমস্যা, খাবার, আবহাওয়া নানা কারণে চুলে অকালপক্কতা দেখা দিতে পারে। মিনারেল, ভিটামিন-এ, বি, কপার, আয়রনের অভাবে চুল পেকে যেতে পারে। এছাড়া অপর্যাপ্ত ঘুম, জীবন-যাপনের অনিয়ম, অযত্ন ও দুশ্চিন্তার কারনেও অনেকের চুল তাড়াতাড়ি পেকে যায়।অগত্যা তখন চুল রং করা ছাড়া আর কোনো উপায়ও থাকে না।

চুল পাকলে সাধারণত মানুষ কি করে থাকে?

অনেক মানুষ সাধা চুল কালো করতে বিভিন্ন ধরনের পাউডার বা জেল ব্যবহার করে আসছে। এই ক্ষতিকারক রাসায়নিক পদার্থ চুলকে কালো করে ঠিক, কিন্তু চুল গুরুতরভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় শুধু তাই নয় যাদের অ্যালার্জি আছে, তাদের চুল আরো গুরুতর খারাপ পর্যায়ে চলে যায়। কারণ বাজারচলতি প্রায় প্রতিটি রঙের মধ্যেই কম-বেশি কেমিক্যাল থাকে, যা চুলের জন্য মোটেই ভালো নয়। অনেক সময়ে মাথার চুল উঠে যাওয়ার আশঙ্কাও থাকে।অতএব, এই রংগুলি ব্যবহার না করে চুল পেস্ট এড়াতে, প্রাথমিক পদক্ষেপগুলিতে কিছু গৃহপদ্ধতি গ্রহণ করা যেতে পারে । আসুন জেনে নেই পাকা চুল কালো করার ঘরোয়া উপায়

খালি পেটে এক কোয়া রসুন! তারপরই ম্যাজিক! আপনার ১২টি রোগের উপশম হবে।

১। লাল চা/ব্ল্যাক কফি

অনেকেই লাল চায়ের/ব্ল্যাক কফির কথা শুনে ভাবছেন যে, লাল চা/ব্ল্যাক কফি দিয়ে আবার কী হবে। লাল চা/ব্ল্যাক কফি খাওয়ার পরিবর্তে যদি চুলে লাগান তা হলে দেখবেন আস্তে আস্তে চুলের রং কালো হয়ে যাবে। তাবে তা নিয়মিত চুলে লাগাতে হবে। লাল চা/ব্ল্যাক কফি শুধুমাত্র চুল কালোই করবে না তা সঙ্গে সঙ্গে চুলের গ্রোথও বাড়াবে। আর হারিয়ে যাওয়া চুলের পুষ্টিও ফিরে পাবে। প্রথমেই দুই কাপ পানিতে ৪-৫ চামচ চা পাতা/ব্ল্যাক কফি দিয়ে ভলি করে ফুটিয়ে নিন, অত:পর ঠান্ডা করে চুলে ভাল করে লাগিয়ে নিন, এভাবে নিয়মিত কয়েকদিন লাগালে দেখবেন আপনার চুল কালো হয়ে উঠছে।এতে স্থায়ীভাবে চুল কালো হবে না কিন্তু দীর্ঘ সময়ের জন্য চুল কালো থাকবে।

জেনে নিন অতিরিক্ত টেলিভিশন দেখলে মানুষের আয়ু কমে কেন?

২। বাদাম তেলের ব্যবহার

বাদাম তেল চুলে লাগালে চুলের পুষ্টি ও চুলের উজ্জ্বলতা ফিরে পাওয়া যায়। বাদাম তেল যদি সপ্তাহে ৩-৪ দিন লাগাতে পারেন তা হলে চুল পাকা হওয়ার প্রবণতা অনেকটাই কমে যাবে।

৩। পেঁয়াজের রস ও লেবু রসের মিশ্রণ

তিন চামচ পেঁয়াজের রস ও দু’চামচ লেবুর রস ভাল করে মিশিয়ে নিয়ে মাথার চু/চুলে ভাল করে লাগান। প্রায় ৪৫ মিনিট এইভাবে রাখার পরে ভাল করে শ্যাম্পু করুন। সপ্তাহে ৩ থেকে ৪ বার করতে পারলে ভাল।এতে আস্তে আস্তে চুল কালো হয়ে উঠবে।

৪। আলুর ছোলার পানির ব্যবহার

আলু ছাড়িয়ে তার খোসাগুলো একটি পাত্রে রেখে ছোলার মধ্যে দুই-তিন কাপ পানি দিয়ে আলুর খোসাগুলিকে ভাল করে সেদ্ধ হতে দিন। আলুর খোসা সেদ্ধ হয়ে এলে পানিতে ছেঁকে নিন। আলুর খোসা ছাঁকা পানি ঠান্ডা হলে একটি বোতলে ভরে রাখুন।

যেভাবে ব্যবহার করবেন :
প্রথমে মাথার চুল পানি দিয়ে ভালো করে ধুয়ে নিন। যদি আপনার চুলে তেল বা খুব বেশি ময়লা থাকে তাহলে ভাল করে শ্যাম্পু করে নিন। এরপর আলুর খোসা ছাঁকা পানি মাথার চুলে লাগিয়ে হাল্কা করে ম্যাসাজ করুন। এরপর আধা ঘন্টা রেখে দিন। আধাঘন্টা পর চুল পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দুই বার এই পদ্ধতি মেনে চলুন। কয়েকদিন ব্যবহারে আপনার সাদা চুল কালো হয়ে যাবে।
এভাবে কয়েক সপ্তাহ ব্যবহার করলেই ফিরে পাবেন আপনার কাঙ্ক্ষিত চুল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *